সাদের হাত দিয়ে কানের লালগালিচায়, এর থেকে বড় প্রাপ্তি কী?

সাদের হাত দিয়ে কানের লালগালিচায়, এর থেকে বড় প্রাপ্তি কী?

ঘোষণা করা হলো কানের পুরস্কার। অফিসিয়ালি হয়তো আবদুল্লাহ মোহাম্মদ সাদের রেহানা মরিয়ম নূর কোন পুরস্কার পায়নি। তবে সাদের হাত ধরে যা অর্জিত হয়েছে তা অনন্য হয়ে থাকবে বাংলাদেশি সিনেমা ইতিহাসে। এই প্রথমবারের মতো ছবিটি স্থান করে নিলো কান চলচ্চিত্র উৎসবের আঁ সার্তেঁ রিগায়। যা অনন্য হয়ে থাকবে। বাংলাদেশি এবং বাংলা ভাষাভাষী মানুষের জন্য এ অর্জন সীমাহীন গুরুত্ববহন করে। সাথে সাথে শৈব তালুকদার, চিন্ময় রয়, আলী আফজাল উজ্জ্বল, তুহিন নাজমুল, এহসানুল হক, কাজী সামি, আফিয়া জাহান, আফিয়া তাবাচ্ছুম এবং আজমেরী হক বাঁধন, এ নামগুলোও ইতিহাস হয়ে গেলো।

বাঁধন, ছবিঃ সংগৃহীত

অফিসিয়াল পুরস্কার না পাওয়ার বিষয়ে এ সিনেমার কেন্দ্রীয় চরিত্র রূপদান করা অভিনেত্রী আজমেরী হক বাঁধন সংবাদমাধ্যমে জানান, “উৎসবে এসে আমরা যা যা পেয়েছি, তাতে মুগ্ধ। বাংলাদেশের ছবি প্রথমবার এতটা পথ এল, সবার ভালোবাসা পেল, প্রশংসিত হলো—এই সম্মানটাই–বা কম কী!”

ছবিঃ সংগৃহীত

ইতিমধ্যে সোশ্যাল মিডিয়া রেহানা মরিয়ম নূর’ময়। আলোচনার কেন্দ্রতে আছে এ সিনেমা। সমালোচক এবং সিনেমা প্রেমীরাও বাঁধনের গলায় সুর মিলিয়ে একই কথা বলছেন। তারাও বলছেন সাদ একটি সিনেমার মধ্য দিয়ে কানে পা ফেলেছে। এ যাত্রা অব্যাহত থাকবে। অস্কারেও লড়াই করবে বাংলাদেশি সিনেমা। আর সেই লড়াইয়ের অনুপ্রেরণা হয়ে কাজ করবে আবদুল্লাহ মোহাম্মদ সাদ এর নির্মাণ ‘রেহানা মরিয়ম নূর’।

বাঁধন, ছবিঃ সংগৃহীত

বাঁধনের মতোই জ্বলে উঠবে অন্য কোন পারফর্মার। ভালো সিনেমা তৈরি হবে। ভালো গল্প বলা হবে। লালগালিচায় হাঁটার ব্যাপারটিও নিয়মিত অভ্যাসে পরিণত হবে।

বাঁধন, ছবিঃ বাঁধনের সোশ্যাল মিডিয়া
বাঁধন, ছবিঃ বাঁধনের সোশ্যাল মিডিয়া
বাঁধন, ছবিঃ বাঁধনের সোশ্যাল মিডিয়া

Leave a Reply

Your email address will not be published.