ঢাকায় আইসিইউ হাহাকার, ফাকা নেই কোন বেড

ঢাকায় আইসিইউ হাহাকার, ফাকা নেই কোন বেড

করোনা ভাইরাসে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ডসংখ্যক আক্রান্ত ও নিহত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ১৫ হাজার ১৯২ জন। এর মধ্যে ৬ হাজার ৪০ জন আক্রান্ত হয়েছে শুধু ঢাকা শহরেই আক্রাত যা মোট রুগীর ৪০ শতাংশ আক্রান্ত ঢাকায়।

করোনার এই ঊর্ধ্বগতির সবার কপালেই চিন্তার ভাজ, পাশাপাশি হাসপাতালগুলোতে চাপ বেড়েই চলেছে। সাধারণ শয্যা, ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ) শয্যা এবং অক্সিজেন সরবরাহ বাড়িয়েও অনেক হাসপাতালে রোগী সামাল দেওয়া যাচ্ছে না। বিশেষ করে মুমূর্ষু রোগীর জন্য আইসিইউ শয্যা মিলছে না। এ অবস্থায় মুমূর্ষু রুগী নিয়ে স্বজনরা এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতালে ছুটছেন। আইসিইউ শয্যা না পেয়ে সাধারণ শয্যায় কিংবা বাড়িতেই মারা যাচ্ছেন।

খোজ নিয়ে জানা যাচ্ছে ঢাকার কোন হাঁসপাতালেই আইসিইউ বেড ফাকা নাই, বিএসএমএমইউ ২০ টি আইসিইউ শয্যা রয়েছে যার একটিও ফাকা নেই। তবে ২৩০টি সাধারণ শয্যা মাঝে মধ্যে এক দুই টা ফাকা হচ্ছে।

শুধু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল  বিশ্ববিদ্যাল নয়, রাজধানীর অনেক হাসপাতালের চিত্র একই। ঢাকা শহরে করোনা রোগীর চিকিৎসায় সরকারি ১৬টি ও বেসরকারি ২৮টি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালে আইসিইউ শয্যা আছে ৯০০টি। এর মধ্যে সরকারিতে ৩৯৩ ও বেসরকারিতে ৫০৭টি। গতকাল সোমবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত সরকারি হাসপাতালগুলোর ৩৪৫টি শয্যায় রোগী ছিলেন, ১০টি হাসপাতালে কোনো আইসিইউ শয্যা খালি ছিল না। বাকি ৬টি হাসপাতালে ৪৮টি শয্যা খালি আছে। আর বেসরকারি হাসপাতালগুলোর ৯টিতে কোনো আইসিইউ শয্যা ফাঁকা ছিল না। বাকি ১৯টিতে শয্যা ফাঁকা ছিল ৮৫টি।

এ ছাড়া ঢাকা শহরের হাসপাতালগুলোতে সাধারণ শয্যা রয়েছে ৫ হাজার ৭১৭টি। এর মধ্যে গতকাল দুপুর ১২টা পর্যন্ত ৩ হাজার ৯৮৯টি শয্যায় রোগী ছিল। কোনো কোনো হাসপাতালে সাধারণ শয্যার চেয়ে বেশি রোগী চিকিৎসাধীন। হিসাব বলছে, সরকারি হাসপাতালের ৮৮ শতাংশ আইসিইউ শয্যায় রোগী চিকিৎসাধীন। আর বেসরকারি হাসপাতালের ৮৩ দশমিক ২৫ শতাংশ আইসিইউয়ে রোগী রয়েছেন। সাধারণ শয্যার ৬৯ দশমিক ৭৯ শতাংশে রোগী রয়েছেন। সারাদেশে ১৩০টি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালে ১৫ হাজার ৭১৯টি সাধারণ শয্যা রয়েছে। এর মধ্যে গতকাল দুপুর পর্যন্ত ১০ হাজার ৪৩টি শয্যায় রোগী ছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.