চলচ্চিত্রের মন্দা কাটাতে প্রযোজনায় আসছে বিএফডিসি

চলচ্চিত্রের মন্দা কাটাতে প্রযোজনায় আসছে বিএফডিসি

বিশেষ প্রতিবেদনঃ

১৯৫৭ সালে পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান পূর্ব পাকিস্তান চলচ্চিত্র উন্নয়ন সংস্থা বিল ১৯৫৭ পেশ করেন। পরবর্তীতে পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদে বিল পাসের মাধ্যমে ‘পূর্ব পাকিস্তান চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন’ প্রতিষ্ঠা হয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর এর নাম পরিবর্তন করে “বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন” রাখা হয়।

অত্যন্ত গৌরবের সাথে কাজ করে আসলেও বর্তমানে এ প্রতিষ্ঠান বেহাল দশায় রয়েছে। এর দায় এর দায়িত্বে থাকা কর্তা ব্যক্তিরা কোনভাবেই এড়িয়ে যেতে পারবেন না। একসময়ের যৌবনা বিএফডিসি এখন অনেকটাই জৌলুসহীন। বিএফডিসির প্রাঙ্গণ একসময় চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টদের আনাগোনায় উজ্জ্বল থাকলেও এখন নাম মাত্র কিছু নায়ক-নায়িকা কিংবা অভিনেতা এবং নির্মাতা/প্রযোজক নাম ধারী ব্যক্তিবর্গের দখলে। যারা কাজের চেয়ে কাদা ছোড়াছুড়িতেই ব্যস্ত থাকেন বেশি। যা এফডিসির কার্যক্রমের উপর ব্যাপক প্রভাবে ফেলে।

আশার কথা হলো, এফডিসি সিনেমা প্রযোজনার উদ্যোগ নিয়েছে। বর্তমানে চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রিকে বেহাল দশা থেকে টেনে তুলতেই সংস্থাটির এ উদ্যোগ। যদিও এখানে হুমকিও রয়েছে। সম্ভাব্য চলচ্চিত্রগুলো ঠিক হাতে যাবে কিনা! অনেক সম্ভাবনাময় তরুণ নির্মাতা আমাদের চলচ্চিত্র নিয়ে আশা জাগানিয়া গান শোনাচ্ছেন। যার স্বাক্ষর আমরা রেহানা মারিয়াম নূরের কান চলচ্চিত্রে অংশগ্রহণেই দেখতে পাই। এখন প্রশ্ন থেকে যাচ্ছে, বিএফডিসি প্রযোজিত সিনেমাগুলোর নির্মাণভার কার হাতে যাচ্ছে?

অতীতেও সংস্থাটি এমন উদ্যোগ নিয়েছে। যার ফলে গোলাপি এখন ট্রেনে, সূর্য সংগ্রাম, এমিলের গোয়েন্দা বাহিনীসহ বেশ কিছু মানসম্পন্ন প্রোডাকশন দর্শক পেয়েছে। যদিও পরবর্তীতে নানা কারণে এ উদ্যোগ বন্ধ হয়।

প্রযোজনার এ কার্যক্রম শুরু হলে সিনেমায় নতুন আবহাওয়ার বাতাস বইবে বলে মনে করছেন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.